করোনায় আরও ১০ হাজারের বেশি মৃত্যু বিশ্বে


প্রকাশিত:
১৬ জুন ২০২১ ০৭:৫৩

আপডেট:
২৬ অক্টোবর ২০২১ ০১:৪৫

ফাইল ফটো

মহামারি করোনা ভাইরাসের ভয়াল থাবায় বিশ্বজুড়ে সংক্রমিত মানুষের সংখ্যা গত ২৪ ঘণ্টায় বৃদ্ধি পেয়েছে। গত এক দিনে প্রাণঘাতী ভাইরাসটি শনাক্ত হয়েছে আরও পৌনে চার লাখের বেশি মানুষের দেহে। একই সময়ে করোনায় মৃত্যু হয়েছে আরও ১০ হাজারের বেশি লোকের। তাদের নিয়ে মৃতের সংখ্যা ৩৮ লাখ ৩৮ হাজার ছাড়িয়েছে।

আন্তর্জাতিক জরিপ সংস্থা ওয়ার্ল্ডো মিটারসের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, বুধবার (১৬ জুন) বাংলাদেশ সময় সকাল ১০টা পর্যন্ত আগের দিনের তুলনায় গেল ২৪ ঘণ্টায় নতুন শনাক্ত রোগী ও মৃত মানুষের সংখ্যা বেড়েছে। বিশ্বজুড়ে করোনায় নতুন করে আক্রান্ত নতুন রোগীর সংখ্যা তিন লাখ ৮৫ হাজার ৬২ জন এবং এ রোগে নতুন মারা গেছেন ১০ হাজার ৬০৫ জন।

তার আগের দিন সোমবার বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন তিন লাখ ২৫৫ জন এবং মারা গিয়েছিলেন ছয় হাজার ৬৭১ জন। অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বজুড়ে করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা তার আগের দিনের তুলনায় বেড়েছে।

মহামারি শুরুর পর থেকে এ পর্যন্ত বিশ্বজুড়ে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১৭ কোটি ৭৪ লাখ পাঁচ হাজার ৩৯৩ জন এবং এ রোগে মৃত্যু হয়েছে মোট ৩৮ লাখ ৩৮ হাজার ৩৫ জনের। এছাড়া করোনা থেকে মোট সুস্থ মানুষের সংখ্যা ১৬ কোটি ১৮ লাখ ৩৭ হাজার ৯১৮ জন।

করোনায় সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত ও মৃত্যু হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে। দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ছয় লাখ ১৫ হাজার ৭১৭ জন। এছাড়া করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন তিন কোটি ৪৩ লাখ ৫২ হাজার ১৮৫ জন।

আক্রান্তের দিক থেকে দ্বিতীয় ও মৃত্যুর হিসেবে তৃতীয় অবস্থানে আছে ভারত। এরপর আছে লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিল।

ভারতে এ পর্যন্ত করোনায় মারা গেছেন তিন লাখ ৭৯ হাজার ৬০১ জন। মোট আক্রান্ত দুই কোটি ৯৬ লাখ ৩২ হাজার ২৬১ জন।

ব্রাজিলে করোনায় মোট মারা গেছেন চার লাখ ৯১ হাজার ১৬৪ জন। মোট আক্রান্ত হয়েছেন এক কোটি ৭৫ লাখ ৪৩ হাজার ৮৫৩ জন।

তালিকায় চতুর্থ স্থানে রয়েছে ফ্রান্স, পঞ্চম স্থানে তুরস্ক, ষষ্ঠ স্থানে রাশিয়া, সপ্তম যুক্তরাজ্য, অষ্টম ইতালি, নবম আর্জেন্টিনা এবং দশম স্থানে রয়েছে কলম্বিয়া।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহান শহরে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়। পরে সাধারণভাবে এই ভাইরাসটি পরিচিতি পায় নতুন বা নভেল করোনা ভাইরাস নামে। করোনায় প্রথম মৃত্যুর ঘটনাটিও ঘটেছে উহানেই। চীনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে তখন জানানো হয়েছিল, অপরিচিত ধরনের নিউমোনিয়ায়’আক্রান্ত হয়ে ওই ব্যক্তি মারা গেছেন।

এরপর খুব অল্প সময়ের মধ্যে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এই ভাইরাসের উপস্থিতি দেখা যাওয়ায় ২০২০ সালের জানুয়ারিতে বিশ্বজুড়ে জরুরি পরিস্থিতি ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। পরে ওই বছর ১১ মার্চ করোনাকে মহামারি ঘোষণা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।



বিষয়:


আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top